মুখে মাখার ক্রিম সম্পর্কে কিছু কথা( তৃতীয় পর্ব ) : রাজা দেবরায়

1
365

মুখে মাখার ক্রিম সম্পর্কে কিছু কথা (তৃতীয় পর্ব) : লিখেছেন রাজা দেবরায়

মুখে মাখার ক্রিম বিক্রেতাদের সবথেকে বড় ও চমকপ্রদ দাবিটি হলো – মুখের রঙ ফর্সা করে দেওয়া ! ফর্সা হওয়ার প্রতি আমাদের রয়েছে এক অসাধারণ মোহ । তাই স্বভাবতই ওদের বিজ্ঞাপনের প্রতি আমরা সহজেই আকৃষ্ট হই এবং ওদের কথাগুলোকেই ধ্রুব সত্য বলে মেনে নিই । আমাদের নিজস্ব ভাবনাচিন্তা, যুক্তি কোনটাই কাজে লাগাই না । বিজ্ঞাপনে নিজস্ব প্রোডাক্টটির শুধুমাত্র গুণগান গাওয়াটাই যে স্বাভাবিক ব্যাপার, সেটা আমরা বুদ্ধিমান হয়েও ভুলে যাই ।

বিজ্ঞাপনে কি বলবে যে তাদের জিনিসটা আসলে কোন কাজেরই না ? আমরা কি এটা আশাও করতে পারি ? কিন্তু বিজ্ঞাপনে যাই বলুক, মজার ব্যাপার হলো – ক্রিমগুলোতে যেসব রাসায়নিক সাধারণভাবে রয়েছে তাদের কোন ক্ষমতাই নেই মুখের রঙ ফর্সা করার । চামড়ার ঠিক ওপরের স্তর যাকে বলা হয় এপিডারমিস, তাতে এক ধরনের কোষ থাকে যাকে বলে মেলানোসাইট – এরা তৈরি করে মেলানিন । এই মেলানিনের ওপরই নির্ভর করে শরীরের রঙ কতখানি কালো বা ফর্সা হবে । মেলানিন বেশি হলে রঙ তুলনায় কালো হবে আর মেলানিন কম হলে রঙ তুলনায় বেশি সাদা হবে । তেমনি রোদে বেশি ঘোরাঘুরি করলে যে শরীরের রঙ তামাটে হয়ে যায় তার কারণও এই মেলানিন । সূর্যের অতিবেগুনী রশ্মি চামড়ার ওপর পড়লে কোষগুলো উত্তেজিত হয় এবং মেলানিনের আধিক্য ঘটে ।

তাই ইওরোপের বহু মানুষই শরীরে একটু তামাটে ছাপ আনার উদ্দেশ্যে সূর্যস্নান করেন । কিন্তু এই রঙও দীর্ঘস্থায়ী হয় না । কারণ আমাদের শরীরে মেলানিন যেমন একদিকে তৈরি হচ্ছে, তেমনি স্বাভাবিক শারীরবৃত্তীয় কারণে তা ভেঙেও যাচ্ছে ক্রমাগত । পুরনো মেলানিন ভেঙে নতুন মেলানিন তার জায়গায় স্থান নিচ্ছে । এভাবেই শরীরের পূর্বের রঙ কিছুদিন পরেই ফিরে আসে । এই কারণটির জন্য আমাদের শরীরে কাটা ছেঁড়া ইত্যাদি সেরে ওঠার পর কিংবা ব্রণের জন্য যে কালো দাগ পড়ে তাও কিছুদিনের মধ্যেই মুছে যায় এবং এটা কোন ক্রিম বা মলম ব্যবহার করা ছাড়াই সম্ভব হয় । অবশ্য কিছু কিছু ক্ষেত্রে এই কালো দাগ দীর্ঘস্থায়ী হয় । সেক্ষেত্রে দেখা যায়, চামড়ার এই মেলানিন যা সাধারণত চামড়ার ওপরের স্তর এপিডারমিসে থাকে তা যখন নীচের স্তর ডারমিসে চলে যায় তখন এই রঙ দীর্ঘস্থায়ী হয় । এসব ক্ষেত্রে কোন ক্রিমই তা সে যত নামীদামি কোম্পানিরই হোক না কেনো, কোন কাজ করতে পারে না । এছাড়াও ডাল বাটা, ডাবের জল, মাখন, সর ইত্যাদি কোন কিছুরই কোন রকম ক্ষমতা নেই এই কালো রঙ তুলে দেবার । তবে এগুলো দিয়ে মুখে ম্যাসাজ করার জন্য মুখের রক্ত সঞ্চালন কিছুটা বৃদ্ধি পেতে পারে । যদিও সাধারণভাবে মুখে রক্ত সঞ্চালন যথেষ্টই, সেখানে ম্যাসাজের বাড়তি কোন প্রয়োজন নেই । তবে খরচে পোষালে কেউ সর-মাখন ইত্যাদি দিয়ে মুখ পরিষ্কার করতে চাইলে কোন অসুবিধা বা আপত্তি নেই !! (চলবে)

1 মন্তব্য

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে